পর্দা নামলো টরন্টো দক্ষিণ এশিয় চলচ্চিত্র উৎসবের

AdvertisementLeaderboard

সাইফুল্লাহ মাহমুদ দুলাল

২২ শে মে, সোমবার শেষ হলো টরন্টো দক্ষিণ এশিয় চলচ্চিত্র উৎসব। এই জমজমাট ষষ্ঠ চলচ্চিত্র উৎসব শুরু হয়েছিল গত ১১ মে। এতে ১২ দিনব্যাপী টরন্টোর সাতটি স্থানে বিভিন্ন দেশের পনেরটি ভাষার প্রায় একশ’রও অধিক ছবি প্রদর্শিত হয়।

পাশাপাশি চল্লিশটি চলচ্চিত্র বিষয়ক সেমিনার সিম্পোজিয়াম ও ডিনার পার্টির আয়োজন করা হয়েছিল। উৎসবে অংশ গ্রহণকারী চলচ্চিত্রের অভিনেতা-অভিনেত্রী, প্রযোজক পরিচালক, কলা-কুশলীরা উপস্থিত ছিলেন।

18582186_10208564522020389_111364198583340619_n
‘ভুবন মাঝি’র অভিনেত্রী অপর্ণা ঘোষ এবং আয়োজক আনোয়ার আজাদ

বাংলাদেশের ‘ভুবন মাঝি’র অভিনেত্রী অপর্ণা ঘোষ এবং ‘মাটির প্রজার দেশে’র পরিচালক ইমতিয়াজ বিজন দর্শকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন। অপর্ণা ঘোষ তার প্রতিক্রিয়ায় বলেন, কানাডার এই বৃহত্তম উৎসবে যোগ দিতে পেরে আমি আনন্দিত। একজন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান হিসেবে এই ছবিতে অভিনয় করে গর্ব অনুভব করছি।

18620463_10208564543980938_8096788520215827748_n
‘মাটির প্রজার দেশে’ চলচ্চিত্রের পরিচালক বিজন ইমতিয়াজ এবং উপস্থাপিকা অজন্তা চৌধুরী

উৎসবে বাংলাদেশের চারটি পূর্ণদৈর্ঘ্য ছবি স্থান পায়। ছবিগুলো হচ্ছে- ফখরুল আবেদিন খান পরিচালিত ‘ভুবন মাঝি’, আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ সাদ পরিচালিত ‘লাইভ ফ্রম ঢাকা’, বিজন ইমতিয়াজ পরিচালিত ‘মাটির প্রজার দেশে’ এবং আশরাফ শিশিরের ‘গোপন’। উল্লেখ্য, ‘গোপন’ ছবিটির প্রযোজক হচ্ছেন- এই ফিল্ম  ফেস্টিভ্যালের অন্যতম আয়োজক আনোয়ার আজাদ।

18582106_10155298858664666_6441588140126659367_nআনোয়ার আজাদ জানান, আমরা ছয় বছর ধরে এই ফিল্ম ফেস্টিভ্যালের আয়োজন করে শুধু দর্শকই নয়; সর্বস্তরে ব্যাপক সাড়া পেয়েছি। সার্বিকভাবে কানাডার মেইনস্ট্রিমেও আমরা যুক্ত হয়েছি। আগামীতে আরো বেশি করে ভালো বাংলা ছবি দেখানোর প্রচেষ্টা চালাবো। কারণ, আমাদের বাংলাদেশের ছবির প্রতি যেমন প্রবাসীদের আগ্রহ রয়েছে, তেমনি বিদেশিদেরও আগ্রহ তৈরি হচ্ছে।

তিনি আরও জানান, আমি ব্যক্তিগতভাবে এবার একটি ছবি প্রযোজনা করেছি, প্রচুর সাড়া পেয়েছি। ভালো স্ক্রিপ্ট পেলে আগামীতেও করার ইচ্ছে!

এ উৎসবে আরো ছিলো কলকাতার শৈবাল মিত্রের ‘চিত্রকর’ আর আসামের রাজবংশী ভাষায় নির্মিত বেবি শর্মা বড়ুয়া পরিচালিত ‘সোনার বরণ পাখি’।

এছাড়াও দশটি স্বল্প দৈর্ঘ্যের ছবিও এই উৎসবে প্রদর্শিত হয়েছে।

Facebook Comments
Print Friendly, PDF & Email