অনলাইনে প্রেম করতে গিয়ে সব হারালেন কানাডার এক নারী!

AdvertisementLeaderboard

কানাডার টরন্টোর এক নারী অনলাইনে পরিচিত এক ব্যক্তিকে নিজের ভবিষ্যত সঙ্গী ভেবে তার হাতে তুলে দিয়েছেন কয়েক হাজার ডলার। ওই প্রতারকের প্রতারণায় তিনি নিজের বাড়িটিও হারিয়ে এখন পুলিশের দ্বারস্থ হয়েছেন।

ওই নারীর নাম প্রকাশ না করে পুলিশ বলেছে, ওই নারী আগে পৌরসভার কর্মী ছিলেন এবং এই মামলার প্রধান সন্দেহভাজক কিংবা সন্দেহভাজকদের সঙ্গে প্রথমে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেই সংযোগ করেছিলেন তিনি।

এ ঘটনার তদন্ত কর্মকর্তারা বলেছেন, ওই নারী ভেবেছিলেন যে তিনি দীর্ঘ কোনো সম্পর্কে জড়াচ্ছেন এবং এ ভাবনা থেকেই ওই ব্যক্তি চাওয়া মাত্রই তিনি তার ৪০ হাজার ডলার তাকে দিয়ে দেন।

আর্থিক অপরাধের বিষয়ে কাজ করা টরন্টো পুলিশের সার্জেন্ট ইয়ান নিকোল বলেন, প্রতারকের হাতে টাকা তুলে দেওয়ার পর তিনি বুঝতে পারেন যে তিনি ভুল করেছেন।

নগদ টাকা হারানোর পর ওই নারীর সঙ্গে ওই একই ব্যক্তি জাতিসংঘ ও যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল ইনভেস্টিগেশনের (এফবিআই) এজেন্ট পরিচয়ে যেগাযোগ করে বলেন, প্রতারিত হওয়ার জন্য নাইজেরিয়ার একটি কোর্ট ক্ষতিপূরণ হিসেবে তাকে ২২ মিলিয়ন ডলার দিয়েছেন।

এরপর ওই ব্যক্তি তাকে পুরষ্কার জেতার কথা বোঝাতে সক্ষম হন এবং তাকে বলেন যে ওই পুরষ্কারের টাকার ফি, ট্যাক্স এবং খরচ তাকেই বহন করতে হবে। আর ওই খরচ বহনের জন্য নিজের বাড়ি বিক্রি করে দেন ওই নারী।

জাতিসংঘ ও এফবিআইএর এজেন্ট হিসেবে নিজের পরিচয়কে প্রতিষ্ঠিত করার জন্য ওই ব্যক্তি তাকে ভুয়া সংবাদ ও আদালতের আদেশের কপিও পাঠান যা তাকে আরও বিশ্বস্ত করে তোলে ওই নারীর কাছে।

এখনও এ ঘটনার সঙ্গে যুক্তদের ধরতে পারেনি পুলিশ। তবে ওই নারীর ঘটনা অনলাইন ব্যবহারকারীদের জন্য একটি বড় সতর্কবার্তা হতে পারে বলে মন্তব্য করেছে পুলিশ।

নিকোল বলেন, এই নারী খুব বোকা নন কারণ তিনি একটি প্রশাসনিক অফিসে কাজ করেছেন। এ ধরণের ঘটনার ক্ষেত্রে সাধারণত আমাদের দূর্বলতার বিষয়টিকে বেছে নিয়ে প্রতারকরা প্রতারণা করে।

এমন ঘটনায় গত বছর ৪০ থেকে ৫০ বছর বয়সী ৭৪৮ জন কানাডিয়ান প্রায় ১৭ মিলিয়ন ডলার হারিয়েছেন। এদের মধ্যে অনেকেই প্রতারকদের হাতে ১ লাখ ডলারেরও বেশি তুলে দিয়েছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

মেট্রো নিউজ
Facebook Comments
Print Friendly, PDF & Email