অভিবাসীদের সুখ-দুঃখ এবং মানসিক স্বাস্থ্য (পর্বঃ তের)

781
লেখকঃ মো. সাইফুল আলম
AdvertisementLeaderboard

মো. সাইফুল আলম

।। টরন্টো, কানাডা থেকে ।। 

আমার আগের লেখাটিতে কানাডাতে কাজের সুযোগ করণীয় বিষয়ে আলোচনা করতে গিয়ে কাজের সুযোগ ও Networking এর গুরুত্ব সম্পর্কে বলেছিলাম। আজকে আরও কিছু বিষয় তুলে ধরতে চাই। আমি আগেই বলে রাখি, যেহেতু আমি মানসিক স্বাস্থ্য ও সামাজিক বিষয় নিয়ে কাজ করি, তাই আমার লেখায় এই বিষয়টি বেশি তুলে ধরার চেষ্টা করছি। তবে আমি আমার অভিজ্ঞতা ও মানুষের মানসিক স্বাস্থ্য ও সামাজিক বিষয় ইত্যাদি দিয়ে আলোচনা করবো। আমি আবারও বলে রাখি, এগুলো কতগুলো ধারণার মধ্যে একটা, তবে একমাত্র না। আপনাকে সফল হতে গেলে যে চাকুরি করতে হবে তা নয়। আমি অনেকের কথা জানি, যারা ব্যবসা করে করে সফল। আমি যেটা গুরুত্ব দেব সেটা হল ground work করে সিদ্ধান্ত নেওয়া।

গত পর্ব পড়তে এখানে ক্লিক করুনঃ অভিবাসীদের সুখ-দুঃখ এবং মানসিক স্বাস্থ্য (পর্বঃ বারো)

কানাডাতে কাজের সুযোগ নির্ভর করে আপনার কোন বিষয়ে ডিগ্রী ও অভিজ্ঞতা আছে তার ওপর। অনেকে এখানে এসে কোন ground work না করে এই কোর্স সেই কোর্স করে সময় পার করে। আপনি যদি ground work না করে একটার পর একটা ডিগ্রী নেন, তাহলে বেশির ভাগ সময়ই ব্যর্থ হতে হয়। মানুষ কীভাবে নেবে জানিনা, তবে বয়স একটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই short term ও long term লক্ষ্য ঠিক করতে হয়। কারন short term লক্ষ্য ঠিক করতে হয় আপনার জীবিকার তাগিদে। আপনি যখন আপনার Honeymoon Phase পার করে বাস্তবতায় পরবেন, তখন আপনাকে চলার জন্য কাজ খুঁজতেই হবে। হতে পারে সারভাইভাল জবটা আপনার short term লক্ষ্য, কিন্তু আপনার ফিল্ড-এ বা এখানে এসে আপনার পছন্দনীয় ফিল্ড-এ জবটা long term লক্ষ্য হিসাবে ঠিক করতে পারেন। আমি এমনও জানি, এখানে এসে অনেক সারভাইভাল জবটা বা short term লক্ষ্য না চিন্তা করে long term লক্ষ্যে নেমে পড়ে। আমার কথা হল, আপনি যেটাই করেন না কেন, আপনাকে ground work করে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। যদি আপনি ground work করে সিদ্ধান্ত নেন, তাহলে আর জীবনের কঠিন সময়ে আপসোস করতে হবে না। আপনার long term লক্ষ্য পূরণ করতে অনেক চ্যালেঞ্জে পড়তে হবে। সেক্ষেত্রে আপনার সাপোর্ট এবং financial stability থাকতে হবে।

এখানে কোন ফিল্ড-এ কাজের সুযোগ বেশি? আমি জানি এই বিষয়ে অনেক অভীজ্ঞরা আছেন তারা ভাল বলতে পারবেন। তবে মানসিক স্বাস্থ্য, সোশ্যাল এবং কমিউনিটিমূলক কাজের ভাল সুযোগ আছে তা আমি বলতে পারি। কিছুদিন আগে দেখলাম, মানসিক স্বাস্থ্যখাতে বাড়তি ১৪০ মিলিয়ন ডলার বরাদ্দ করছে অন্টারিও সরকার, আবার আরেকটা কারন Baby Boomer. Baby Boomer’দের অনেকেই কিছুদিনের মধ্যে অবসর নেবে। তখন অনেক সিনিয়রদের কাজ করার সুযোগ যেমন বাড়বে, তেমন ওই সমস্ত খালি পদে বিপুল সংখ্যক লোক নিয়োগের প্রয়োজন হবে। কানাডা কিন্তু সোশ্যাল দেশ ছিল, যার শুরু হয়েছিল দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর এবং ১৯৮০ সাল পর্যন্ত বিভিন্ন ধরনের সামাজিক সুবিধাগুলো বেড়ে গিয়েছিল। আবার ১৯৮০ সালের পর কমতে শুরু করেছে, হারপার গভর্নমেন্ট অর্থাৎ বিগত সরকারের সময় অনেক কমে গিয়েছিল। এখন যেহেতু ট্রুডো গভর্নমেন্ট তাই আশা করা হচ্ছে, সুবিধাগুলো বাড়তে পারে, বা না বাড়লেও অন্তত কমবে না। এই ধরনের সুবিধাগুলো কিন্তু আমাদের মতো অভিবাসীদের অনেক উপকারে আসে। এর কিছু খারাপ দিকও আছে, যা আমি আগের সংখ্যায় মানসিক স্বাস্থ্য ও ট্র্যাপ নিয়ে আলোচনা করেছি।

এখানে আমার একটি পদে নিয়োগের জন্য Hiring Committee তে থাকার সুযোগ হয়েছিল। আগেই বলে রাখি, এখানে আপনার Resume এবং Cover লেটার প্রার্থী নির্বাচনে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আপনার Resume এবং Cover লেটার কানাডার কালচার অনুযায়ী হতে হবে। আমি এমনও দেখেছি, আমরা যে পদে নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি দিয়েছিলাম, বেশীরভাগই আবেদনপত্র overqualified ছিল। আমি দেখেছি অনেক আবেদনপত্র বাদ দেয়া হয়েছিল overqualified বলে, আবার অনেক আবেদনপত্র বাদ পড়েছিল তাদের Resume এবং Cover লেটারে যেভাবে তুলে ধরার দরকার তা তুলে ধরতে পারে নাই বলে। আবেদনকারীর বেশির ভাগেরই বাইরের দেশ থেকে ডিগ্রী ও অভিজ্ঞতা ছিল। আপনার যদি বেশি ডিগ্রী ও অভিজ্ঞতা থাকে, অনেক সময় আবেদন করার সময় তা উল্লেখ না করলেই ভাল, অর্থাৎ জবের requirements অনুযায়ী আপানার Resume এবং Cover লেটার হতে হবে।

আবার অনেকে এসে কোন কিছু চিন্তা না করে masters বা আরও বড় কোন প্রোগ্রামে ভর্তি হয়। আমি বিষয়টি discourage করছিনা, তবে এখানে অনেক সময় কলেজ থেকে ২ বা ৩ বছরের ডিপ্লোমা করে অনেক সময় তাড়াতাড়ি জব পেয়ে যায়। আমি দেখেছি অনেক প্রতিষ্ঠান যখন তাদের কর্মী নিয়োগ করে তখন তারা দেখে যে, তুলনামূলক কম ডিগ্রীধারী কাউকে পায়, তাকে নিয়োগ দেন বেশি ডিগ্রীধারীদের তুলনায়। কারণ এখানে একজন masters ডিগ্রি থাকলে তাকে যে বেতন দিতে হয় সেই তুলনায় ডিপ্লোমাধারীকে কম বেতন দিতে হবে। আবার আরেকটা বিষয় কাজ করে তা হল, আপনি যার অধীনে কাজ করবেন তার ডিগ্রী যদি আপনার ডিগ্রীর চেয়ে কম হয়, তাহলে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই সে চাইবেনা আপনাকে নিতে। আমি এমনও দেখেছি অনেকে তাদের Resume এবং Cover লেটার তাদের জবের requirements অনুযায়ী তৈরি করে। আপনি যদি masters ডিগ্রী বা আরও উচ্চতর ডিগ্রী নিতে আগ্রহী হন, তাহলে আপনাকে confidence থাকতে হবে সেই লেভেল এ কাজ করতে। আর ওই লেভেল এ কাজ করতে কী কী লাগে তা আবার যাচাই করে দেখবেন আপনার মধ্যে তা আছে কিনা? কোন কারণে হচ্ছেনা বলে অল্পতেই হতাশ হলে চলবেনা।

আবার অনেকে ভাইবা বোর্ডে নিজেকে জাহির করে আমি এইটা জানি, ওইটা জানি। আপনার জাহির করা ভালো যদি সেইটা requirements এ থাকে। আমি আগেও বলেছি, এরা কানাডার বাইরের ডিগ্রী ও অভিজ্ঞতাকে খুব গুরুত্ব দেয় না। আবার ব্যক্তিভেদে এবং প্রতিষ্ঠানভেদে আলাদাও হয়। অনেক ক্ষেত্রে আবার এটা সত্য নাও হতে পারে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে যদি science বা টেকনিক্যাল বিষয় হলে আপনি সব জায়গায় ব্যবহার করতে পারেন। আমি social service এবং mental health ফিল্ড-এ দেখেছি। এখানে অনেক কিছু জানতে হয় এই ফিল্ড-এ কাজ করতে গেলে। কারণ কানাডার social service এবং mental health এর সিস্টেম আলাদা আমাদের বাংলাদেশের বা অন্যান্য দেশের তুলনায়।

তাই যখন আপনি ভাইবা বোর্ডে যাবেন, আগে থেকে জেনে নেয়ার চেষ্টা করবেন Hiring Committee কারা থাকতে পারে এবং তাদের মন মানসিকতা কেমন হতে পারে, সেই এজেন্সির মিশন ভিশন ভালভাবে জেনে নেবেন। আমি মনে করি, আপনি যদি বেশি জানেন সেটা সমস্যা না, সমস্যা হল নিজেকে জাহির করা, যারা আপনার ভাইবা নিচ্ছে তাদের কথা চিন্তা না করে বলা। আপনি যদি বলেন, হ্যাঁ আমি এইটা জানি কিন্তু সেটা অন্য context এ, তবে আমি আপনার এজেন্সির context বা কানাডার context এ জানতে চাই। তারা যদি বুঝতে পারে যে আপনি জানেন, তবে সেটা অন্য context এ, এটা স্বীকার করে নিলেন, একই সাথে আপনি জানতে খুবই আগ্রহ প্রকাশ করছেন, তখন তারা মনে করবে এই ব্যক্তিকে দিয়ে হবে। আবার অনেক ক্ষেত্রে দেখবেন আপনাকে তারা নিচ্ছে না কারণ, তারা ভয়ে থাকে আপনি যদি না আবার তার জব ছাড়ার কারণ হন।

চলবে…………

আগামীকাল পড়ুন- পর্বঃ চৌদ্দ
লেখকঃ সমাজকর্মী, কানাডিয়ান মেন্টাল হেলথ অ্যাসোসিয়েশন ডারহাম।
Facebook Comments
Print Friendly, PDF & Email