ওমিক্রনে হিমসিম খাচ্ছে কানাডা: মৃত্যু সংখ্যা ত্রিশ হাজার

Advertisement

সাইফুল্লাহ মাহমুদ দুলাল||

উচ্চ মাত্রায় সংক্রমক করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রন বিশ্বব্যাপি ছড়িয়ে পড়ছে এবং তা কানাডাকেও শঙ্কিত করে তুলছে। প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো স্পষ্ট করে বলেছেন, কোথাও যাওয়ার সময় এটা না।

ভ্রমণ সংশ্লিষ্ট সংক্রমণ ঠেকাতে মন্ত্রী ডুকলোস আরো বলেন, ফেডারেল সরকার ভ্রমণ নির্দেশিকা পরিবর্তনের কথা ভাবছে।

এমতাবস্থায় কানাডিয়ানদের বিদেশ ভ্রমণের পরিকল্পনা বাতিল করার জন্য নাগরিকদের সতর্ক করে দিয়েছে। অটোয়া প্রশাসন দেশবাসীকে অপ্রয়োজনীয় ভ্রমণ এড়ানোর পরামর্শ দিচ্ছে।

করোনা ভাইরাসের নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রনের বিস্তার ঠেকাতে স্কুল, বার, জিম এবং সিনেমা থিয়েটার বন্ধ হলো কানাডার ক্যুইবেকে। ২০ ডিসেম্বর বিকেল ৫টা থেকে এ নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হয়েছে।

স্বাস্থ্যকর্মীদের ব্যবহারের জন্য লাখ লাখ এন-৯৫ মাস্ক কিনছে কুইবেক প্রশাসন। সরকারের তরফ থেকে সঠিক সংখ্যা জানানো না হলেও অনুসন্ধানে জানা গেছে ইতোমধ্যে ১৫ মিলিয়ন মাস্কের মজুদ রয়েছে এবং আরো ১০ মিলিয়ন মাস্ক ক্রয়ের আদেশ দেয়া হয়েছে। কিছু দিনের মধ্যে আরো কয়েক মিলিয়ন মাস্ক ক্রয়ের আদেশ দেয়া হতে পারে।

ক্যুইবেকের স্বাস্থ্যমন্ত্রী ক্রিশ্চিয়ান দুবে বলেন, প্রতি দু’দিনে এর বিস্তার দ্বিগুণ হচ্ছে বলে মনে হচ্ছে। পরিস্থিতি বর্তমানে গুরুতর। আমাদের স্বাস্থ্য ব্যবস্থা ইতোমধ্যেই সংকটের মধ্যে রয়েছে এবং পরিস্থিতি ভালো হচ্ছে না। হাসপাতালে ভর্তি এবং নিবিড় পরিচর্যা ইউনিটে ভর্তির সংখ্যা আবার বেড়ে চলেছে।

টরন্টোতে আবারো দশ জনের বেশি সমাবেশ না করার জন্য সতর্ক করা হয়েছে। অন্টারিও সরকার কোভিড-১৯ র‌্যাপিড টেস্ট কিট বিনামূল্যে সরবরাহ করেছে। এবং তাদের ঘোষণা অনুযায়ী, গত ১৮ ডিসেম্বর থেকে ২০ লাখ র‌্যাপিড টেস্ট কিট বিনামূল্যে বিতরণ করা হবে। জানা গেছে, কানাডায় করোনার টিকার মজুদ রেকর্ড ৪ মিলিয়ন ডোজ ছাড়িয়ে গেছে।

কানাডার ছয় প্রদেশে গত বুধবার একদিনে রেকর্ড সংখ্যক করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন। কুইবেকে ২৪ ঘণ্টায় ১৩ হাজারের বেশি, অন্টারিওতে ১০ হাজার ৪৩৬ জন, ব্রিটিশ কলাম্বিয়ায় দুই হাজার ৯৪৪ জন, ম্যানিটোবায় ৯৪৭ জন, আলবার্টাতে দুই হাজার ৭৭৫ জন, নিউফাউন্ডল্যান্ড ও ল্যাব্রাডরে ৩১২ জন আক্রান্ত হয়েছে। খবরে প্রকাশ, অন্টারিও, কুইবেক ও ব্রিটিশ কলাম্বিয়ায় সবচেয়ে বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছেন।

এই রিপোর্ট পর্যন্ত গত ২৪ ঘন্টায় মারা গেছে ১৭ জন। এপর্যন্ত মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়ালো ত্রিশ হাজার আশি জন।

Facebook Comments
Print Friendly, PDF & Email