কানাডার ম্যানিটোবায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত

1240
AdvertisementLeaderboard

মোহাম্মদ সাকিবুর রহমান খান

উনিপেগ, ম্যানিটোবা থেকে ।।

১৯ ফেব্রুয়ারি রোববার কানাডার ম্যানিটোবা প্রদেশের রাজধানী উনিপেগ এর ম্যানিটোবা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভার্সিটি সেন্টারের হলরুমে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত হয়েছে।

এ আয়োজনে অংশ নিয়ে ছিল ম্যানিটোবাস্থ কানাডা-বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন (CBA), এবং ম্যানিটোবা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলাদেশ স্টুডেন্টস অ্যাসোসিয়েশন (UMBSA)। কানাডা এবং বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীতের মধ্যেদিয়ে অনুষ্ঠানের সূচনা হয়।

সন্ধ্যায় অস্থায়ী শহীদ মিনারে প্রথমে পুস্পস্তবক অর্পণ করেন স্থানীয় এল এম এ এন্ড্র স্মিথ, সংসদ সদস্য টোরি ডুগাদা, ম্যানিটোবা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টুডেন্টস অ্যাসোসিয়েশন এর সভাপতি তানজিদ নাগরা, সাধারণ সম্পাদক উইলফ্রেড ফামরীন, কানাডা-বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন (CBA) এর সভাপতি ডক্টর রহিদুল মন্ডলের নেতৃত্বে উপস্থিত ছিলেন ফয়সাল চৌধুরী, ইসতিয়াক রনি, আরিফুল ইসলাম, লাবনী আক্তার।

3এরপর ম্যানিটোবা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলাদেশ স্টুডেন্টস অ্যাসোসিয়েশন (UMBSA) এর প্রেসিডেন্ট ফাহাদ – বিন আলমের নেতৃত্বে কমিটির নেতৃবৃন্দ বক্তব্য দেন। এরপর সর্ব সাধারণের জন্য শহীদ মিনার উন্মুক্ত করে দেয়া হয়। সর্ব সাধারণের পুস্পস্তবক অর্পণের পর শুরু হয় আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

7এল এম এ এন্ড্র স্মিথ তার আলোচনার প্রথমে ১৯৫২ সালের ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন। তিনি বলেন ম্যানিটোবার মানুষ কমপক্ষে ১৫০ টি ভাষায় কথা বলে। তিনি জানান প্রতিটি ভাষা যেন টিকে থাকে সে বিষয়ে তিনি এবং তার সরকার কাজ করে যাবে।

সংসদ সদস্য টোরি ডুগাদা বাংলাদেশের অভিবাসীদের তার আপনজন উল্লেখ করে বলেন, কানাডায় সকল ধর্মের এবং সকল ভাষার মানুষ নিরাপদ। তিনি উল্লেখ করেন, এখানে তার দলের নেতা প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো সকল ভাষার মানুষ এবং সকল ধর্মের মানুষকে শতভাগ নিরাপত্তা দিতে বদ্ধ পরিকর।

2কানাডা-বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন (CBA) এর সভাপতি ডক্টর রহিদুল মন্ডল সকল ভাষা শহীদদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন। তিনি অস্থায়ী শহীদ মিনারকে ম্যানিটোবায় বসবাসরত সকল বাংলাদেশীদের মিলনের প্রতীক বলে উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, কানাডাতে সংস্কৃতির ভিন্নতা থাকলেও সবাই যার যার মত স্বাধীনভাবে নিজ সংস্কৃতি পালন করে যাচ্ছে।

ম্যানিটোবা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টুডেন্টস অ্যাসোসিয়েশন এর সভাপতি তানজিদ নাগরা এবং সাধারণ সম্পাদক উইলফ্রেড ফামরীন বলেন, তারা গর্বিত যে তাদের বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে এই ধরণের একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন হয়েছে।

6অ্যাসোসিয়েশন (UMBSA) এর প্রেসিডেন্ট ফাহাদ – বিন আলম বলেন, প্ৰতিবছরের ধারাবাহিকতায় এই অনুষ্ঠান বাঙালির প্রানের অনুষ্ঠান। তিনি শোকাবহ ২১ এর বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন।

এরপর শুরু হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। আরিফুর রহমান আবৃত্তি করেন, “কাঁদতে আসিনি ফাঁসির দাবি নিয়ে এসেছি” কবিতাটি। তারপর সায়মা তাসলিমার পরিচালনায় অনুষ্ঠিত হয় সঙ্গীত এবং গীতিনাট্য। এক ঝাঁক শিশু কিশোর কানাডার মাটিতে বাংলাদেশের একুশের ইতিহাসকে সকলের সামনে তুলে ধরেন। পুরো অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন মহিবুর রহমান এবং মৃৎতিকা দত্ত।

Facebook Comments
Print Friendly, PDF & Email