টরন্টোয় কুরআনে মূত্র ছিটানোর অভিযোগ, তদন্ত করছে পুলিশ

AdvertisementLeaderboard
টরন্টোর সেন্ট লরেন্স মার্কেটে রাখা কুরআনের কপি

কানাডার সেন্ট লরেন্স মার্কেটে কুরআনে মূত্র ছিটানোর অভিযোগ তদন্ত করছে টরন্টো পুলিশ। মার্কেটটিতে কুরআনের কপি সরবরাহকারী দুই ব্যক্তি এ অভিযোগ করেছেন।

অভিযোগে বলা হয়, ফেব্রুয়ারির ২৫ তারিখ সকাল সাড়ে ১০টা থেকে সাড়ে ১১টার মধ্যে কাজী ইসলাম এবং তার বন্ধু গার্জেস হামাদ ওই জায়গাতে লোকজনের সঙ্গে কথা বলছিলেন। যে টেবিলে কোরআন রাখা ছিল কাজী ইসলাম ওই সময়ে টেবিল থেকে দুই ফিট দূরে অবস্থান করছিলেন এবং যখন তিনি সেখানে ফিরলেন তখন তিনি দেখতে পেলেন টেবিলের উপর পানি ছিটানো রয়েছে।

ইসলাম বলেন, আমার বন্ধু হামাদকে জিজ্ঞাসা করলাম বৃষ্টি হয়েছে কিনা।

এরপর দুজনই টেবিলের দিকে তাকালেন এবং দেখলেন কুরআনের কপি এবং চেয়ার ভেজা রয়েছে এবং এগুলো থেকে দুর্গন্ধ আসছে।

গত দুই বছর ধরে এই এলাকায় কোরআনের কপি বিতরণ করছেন তারা। কিছু সময়ে মানুষ বিষয়টা অপছন্দ করলেও বেশিরভাগ লোকজনই খুব ভালোভাবে নিচ্ছেন বিষয়টি।

পুলিশকে এ অভিযোগ জানিয়েছেন ইসলাম। পুলিশ বিষয়টিকে বিদ্বেষমূলক অপরাধ হিসেবে গণ্য না করে কুকর্ম হিসেবে আমলে নিয়ে বিষয়টির তদন্ত করছে।

ইসলাম বলেন, তার মোকাবেলা করা সমস্যার বেশিরভাগই মৌখিক অর্থাৎ মানুষ বাজে কথা বলেন। তবে অনেক সময়েই তার গায়ে থুথু মারা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

এছাড়া বড় কোনো সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটলে তখন তাকে বেশি সমস্যার সম্মুখীন হতে হয় বলেও জানান ইসলাম।

তিনি আরও বলেন, অনেকে বিদ্বেষ ছড়ানোর জন্য আমাকে বলেন আমাদের নদী হযরত মুহাম্মদ (স) একজন যৌন নিপীড়ক ছিলেন। আবার অনেকের অভিযোগ আমরা নারীদের প্রতি জুলুম করি। এসব খারাপ বিষয়কে ধারণ করা একটি ধর্মকে আমি এই দেশে কেন প্রচার করছি সেই প্রশ্নও তাদের।

ইসলাম বলেন, আশার কথা হল শতকরা ৯৯ ভাগ লোকই আমাদের পক্ষে কথা বলেন। কেউ যদি আমাদের খারাপ কিছু বলেন তবে ওই লোকেরা আমাদের হয়ে তাদের সঙ্গে লড়েন।

দ্য স্টার
Facebook Comments
Print Friendly, PDF & Email