বিভূঁইয়ে নি:শব্দে চলে গেল আমার বসন্ত

999
AdvertisementLeaderboard

বিভূঁইয়ে নি:শব্দে চলে গেল আমার বসন্ত

-মুস্তাফা দুলারী ।। 

বিভূঁইয়ে আমার জীবন থেকে আরও একটা,
তরতাজা রঙিন বসন্ত চলে গেল নি:শব্দে,
আমাকে ডাক না দিয়েই, না বলেই,
চুপিসারে একেবারে নীরবে গোপনে,
আমি আরেকটি বসন্ত হারালাম ।
খসে গেল আমার জীবনের জং ধরা
একটা ধূসর অধ্যায়ের ।
আমি না পেলাম বসন্তের আগমনী বার্তা
না জানলাম তার প্রস্থানের বারতা ।

দুচোখ ভরে অবলোকন করলাম,
দেখলাম সবাই বসন্ত উৎসবে উদ্বেলিত,
ফুল ফোটেনি আমার পুষ্প উদ্যানে,
ভ্রমর আসেনি মধু আহরণে,
বসন্ত আমারেও ডাকেনি,
একটি বারের জন্যেও না ।
আমার ক্লান্ত অথর্ব দেহটা,
ধূসর বৈরাগ্যের সং মেখে মাদুরে,
আহত পাখির মতন শোকে বিকারগ্রস্ত,
পহেলা ফাল্গুনে গৃহবন্দী ছিলাম,
সারাক্ষন কেটেছে বিবর্ণতায় কৃষ্ণগহ্ববরে,
সশ্রম দন্ডপ্রাপ্ত কয়েদীর মত ।

অথচ একদা
আমার উত্তপ্ত যৌবনের কালে,
বসন্ত আসতো নতুন কলোরবে,
আমার জীবনে বর্নিল সাজে ।
গান ধরতাম, থাকতাম
কত উৎফুল্ল কত উদ্বেলিত,
প্রিয়ার শাড়ির আঁচল ধরে ।
মন ছুঁয়ে হাত ধরে ঘুরতাম,
প্রস্ফুটিত কৃষ্ণচূড়ার সুরভির,
মোহের মাতাল গন্ধে,
বসন্তের রসিক ভ্রমর সেজে ।

দেহের রন্ধে রন্ধে বাসন্তীর রং লেপে,
রমনার বটমূলের ছায়াতলে,
চারুকলার হিল্লোল গাছের আড়ালে,
নজরুলের মাজারের ঝোঁপ ঝাড়ের অদূরে,
আদিম ক্ষুধার নিষিদ্ধ লালসার অভিসারে,
মুখে ঝরতো কত মধুর আলাপন !
আহা ! সেই দৃশ্য তোমরা যদি দেখতে !

ফাল্গুনী দখিনা পবনের উদাস ঝংকারে
আমিও ঘুরতাম প্রিয়ার সাথে দিন ব্যাপিয়া,
অবিকল তোমাদের ঢংয়ে আদলে
অনুরাগের অনুভবে কি যেন খুঁজতাম
প্রিয়ার তিন পেড়ে শাড়ীর আঁচলের খাঁজে ?

আজ আমার কোকিল নেই,
নেই বসন্তের বিমুগ্ধতার ছোঁয়াও,
হারিয়েছি সব ঐশ্বর্য্য, সব বর্ণাঢ্যতাও ।
শূন্য, সবকিছু শূন্য, হৃদয়ের ভিতরটা
খালি পোড়া পাতিলের মতন ।
তবে অনেক অনেক দিন আগে,
ঘটা করে বসন্ত আসতো,
নব সাজে আমার জীবনে,
তোমাদের কাছে এসেছে,
হুবহু যেমনি,
আজিকার মতন করে !

মুস্তাফা দুলারী
ফেব্রুয়ারী ১৫, ২০১৭
মিসিসাগা, টরেন্টো থেকে ।
ইমেইল: mustafadulari@gmail.com
Facebook Comments
Print Friendly, PDF & Email