মা মানেই

2997
AdvertisementLeaderboard

মা মানেই

নুরুল হুদা পলাশ

মা মানেই, হৃদয়ে অথৈ খুশির নাচন, দুচোখে অপার স্বপ্ন বিভোর
মা’তেই সবার লুকিয়ে থাকে পৃথিবীর সব ভালোবাসা, যত্ন, আদর।
মা মানেই, উথাল পাথাল মন, বৃষ্টি নামে অঝোর ধারায়
মা মানেই দখিন হাওয়া, স্নিগ্ধ শীতল সুখের পরশ।
মা বলতেই, কি এক আবেশ বুজে আসে আমার দু চোখ,
জীর্ণ শীর্ণ বয়সের ভারে ন্যুব্জ হয়ে যাওয়া বিশাল মানুষ।
মা বলতেই, দুচোখে ভাসে উঠোন জোড়া এক অবয়ব ক্লান্তিহীন
এতটুকু চোখের আড়াল হবার নেই অবকাশ।
মা মানেই, ভার্সিটি থেকে ছুটিতে ফেরা আমার জন্যে
সারাদিনের অপেক্ষার ডালি সাজিয়ে বসে থাকা
সামনে বসে নিজের হাতে প্লেটে অবিরাম খাবার তুলে দেয়া।
মা মানেই, আবার ছুটি শেষে ফেরার সময় হলে
নদীর পাড়ে দাঁড়িয়ে আমার খেয়া নৌকার দিকে
অপলক চেয়ে থাকা যতক্ষণ না তা চোখের আড়াল হয়।
মা মানেই, জ্বর হলে প্রচন্ড কাঁপুনিতে লেপ মুড়ে পরে থাকা
আমার কপালে অশ্রুসিক্ত সুশীতল চুম্বন
আমার সব ভুল ক্ষমা করে দেয়া অসামান্য এক স্বর্গ দেবী।
এখন? মা মানে, মাঝে মাঝে টেলিফোনে কথোপকথন,
কি খবর কেমন আছো কোমরের ব্যথাটি এখন কেমন
আজকে না হয় রাখি মা, ছেলে কাঁদছে, আবার দিবো ফোন।
দূর প্রবাসের এই জীবনে সারাক্ষণই ব্যস্ত থাকি
মা ওখানে আগের মতই আমার ফেরার পথে তাকিয়ে থাকেন।
মায়ের কাছে এখনও যে রয়েই গেছি সেই আমিটি
দূর সুদূরের মায়ের তরে কেঁদেই যায় এই আঁখিটি
মা ওদিকে আমার তরে বুকে জমাট পাথর বাঁধেন।
 
নুরুল হুদা পলাশ, 
সাস্কাটুন, সাস্কাচুয়ান, কানাডা।
Facebook Comments
Print Friendly, PDF & Email